ভ্রমনে কিছু সতর্কতা ও পরামর্শ...

  • আগের রাতে প্রয়োজনীয় জামাকাপড় ব্যাগে নিয়ে নিন।
  • ফাস্ট এইড হিসাবে-এন্টিসেপ্টিক মলম, খাবার স্যালাইন, প্যারাসিটামল জাতীয় ঔষধ, গ্যাসটিকের ঔষধ,বমির ঔষধ,কাশি বা এলার্জির প্রয়োজনীয় ঔষধ নিতে পারেন।
  • মোবাইলের চার্জার, ক্যামেরা, পেনড্রাইভ নিতে ভুলবেন না।
  • বাড়তি সতর্কতার জন্য একটি পকেট নাইফ, টর্চ লাইট, লাইটার বা ম্যাচ,ও কম্পাস সাথে রাখতে পারেন।
  • আরাম দায়ক জুতা ব্যাবহার করুন, মেয়েরা হিল ওয়ারা জুতা না পারাই শ্রেয়।
  • মেয়েদের স্বর্নের জিনিস বা দামি গহনা না নেওয়াই উত্তম।
  • নির্জন এলাকায় গেলে ল্যাপটপ বা দামী মোবাইল না নেওয়াই শ্রেয়।
  • সব টাকা মানি ব্যাগে না রেখে, আলাদা আলাদা স্থানে রাখুন।
  • আপনার ব্যাগ এর মধ্যে একটি কাগজ বা কার্ডে আপনার নাম ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার লিখে রাখবেন। কোনো কারণে যদি হারিয়ে যায় এবং সেটি যদি সৎ ব্যক্তির হাতে পড়ে তাহলে সহজে ফেরত পাবেন।
  • অবশ্যই ফোটানো পানি অথবা মিনারেল ওয়াটার পান করবেন। কারণ এক জায়গা থেকে অন্য জায়গা গেলে পানির সমস্যাটা বেশি হয়।
  • ভ্রমণে গেলে বেশি মশলাযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলাই ভালো।
  • ভ্রমনে যাওয়ার আগে পরিচিত ডাক্তারের ফোন নাম্বার নিয়ে রাখবেন যাতে হটাত দরকার হলে পরামর্শ নিতে পারেন।
  • স্থানীয়দের সাথে ভালো আচরণ করুন। অযথা ঝামেলা এড়িয়ে চলুন।
  • ভ্রমনের জায়গাটি সম্বন্ধে সঠিক ধারনা না থাকলে স্থানীয়দের সাহায্য নিন অথবা অন্যান্য ট্যুরিস্টদের অনুসরন করুন।
  • কিছু কিছু জায়গা আছে যেগুলো মেয়েদের জন্যে মোটেও নিরাপদ না। ঐ সব জায়গাতে মেয়েরা ভ্রমণ থেকে বিরত থাকুন
  • দুর্গম বা নির্জন এলাকা ভ্রমনে অবশ্যই দল বেধে যাবেন।
  • ছবি তুলতে বা অন্য কোন কারনে কখনোই দল ছাড়া হবেন না।


খৈয়াছড়া ঝর্ণা ভ্রমনে কিছু সতর্কতা ও পরামর্শঃ

  • খৈয়াছড়া ঝর্ণা যেতে জোঁকের উপতদ্রপটা বেশি। তাই লবন নিয়ে নিন। জোঁক লাগলে লবন ছিটিয়ে দিলেই ছেরে দিবে।
  • ঝর্ণায় যাওয়ার রাস্তা বেশ দুর্গম ও পাথর গুলো বেশ পিচ্ছিল, তাই সতর্ক হয়ে পথ চলবেন। মারাত্মক কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে ওই দুর্গম রাস্তা পাড়ি দিয়ে ফিরে আসা অনেক কঠিন হবে।
  • একেবারে ওপরের ধাপগুলো খাড়া পাহাড় বেয়ে উঠতে হবে তাই সেই ক্ষেত্রে খুব সতর্ক হয়ে চলতে হবে। পাহাড়ে চড়ার অভিজ্ঞতা না থাকলে ওপরে ওঠার চেষ্টা না করাই ভালো।
  • প্রয়োজন হলে সেখান থেকে গাইডও নিয়ে নিতে পারেন, তবে নেয়ার দরকার হয় না।
  • যে কোন পরিবহনে যেতে বা কোন কিছু কিনতে গেলে আগে দামাদামি করে নিন।


সিলেট ভ্রমনে সতর্কতাঃ

  • সি.এন.জি ড্রাইভারদের কথায় কখনো বিশ্বাস করবেন না। চেষ্টা করবেন রিজার্ভ সি.এন.জি তে না চড়তে। দামাদামী করলে যাচাই করবেন।
  • লোকাল চা-পাতা বলে যারা চা-পাতা বিক্রি করে ওইগুলো আসলে নিন্মমানের তাই না কেনাই উত্তম।
  • বৃহস্পতি আর শুক্রবারে হোটেলে ভিড় একটু বেশি থাকে।
  • কীন ব্রিজে রিক্সা নিয়ে আসলে সাবধান। বিশেষ করে ব্যাগ/পরনের গয়না ইত্যাদি নিয়ে প্রায়ই দৌড় প্রতিযোগীতা হয় এখানে।
  • রিক্সা চড়লে অবশ্যই সাথে ভাংতি টাকা রাখবেন। নতুবা ১০ টাকার ভাড়া ২০ টাকাও দিতে হতে পারে।
  • জাফলং/লালাখাল/বিছনাকান্দি এইসব জায়গায় বালুর মধ্যে সতর্ক থাকবেন। প্রায়ই শোনা যায় চোরাবালির কথা।
  • জাফলং এ প্যাকেজ থেকে সাবধান, ১০ মিনিটের রাস্তা ৫ টাকার নৌকা ভাড়া দিয়ে পার হয়ে হাটলেই পেয়ে যাবেন।
  • জাফলং মামার দোকান হতে মেইন স্পটের দূরত্ব মাত্র কয়েক মিনিটের সেখান গাড়ি নিয়ে মেইন স্পটে যাওয়ার কোন দরকার পড়েনা। সুতরাং হেটেই যান। গাড়িতে উঠলেই ২০০/৩০০ টাকা হাওয়া হয়ে যাবে।


হ্যাপি ট্রেভেলিং...

Group Tour, Official/Corporate Tour & Family Tour Planner in Dhaka Bangladesh.